Info

চার্জার ফ্যান এর দাম ২০২৩ সকল ব্রান্ডের আজকের দাম জানুন

গ্রীষ্মকালের বা গরমের দিনে আমাদের নিত্য দিনের সঙ্গী হলো ফ্যান। গ্রীষ্মকালের গরমে ফ্যানের বাতাস শরীরে প্রশান্তি এনে দেয়। ফ্যান বিভিন্ন প্রকার হয়ে থাকে যেমন টেবিল ফ্যান, চার্জার ফ্যান ( চার্জার ফ্যান ২ ধরনের হয়ে থাকে টেবিল চার্জার ফ্যান ও মিনি চার্জার ফ্যান), স্ট্যান্ড ফ্যান ও সিলিং ফ্যান ইত্যাদি। কোনো কোনো ফ্যানের ৫ টি পাখা, ৩ টি পাখা ও ৬ টি পাখা থাকে। এখন টেবিল ফ্যানের কিছু বর্ননা উপস্থাপন করা হয়েছে।

টেবিল ফ্যান যেহেতু ছোটো ফ্যান তাই এর মধ্যে ছোটো আকারের মটোর ব্যবহার করা হয়। ফ্যানটি সাধারনত ৫ থেকে ৫৫ ওয়াট বিদ্যুৎ এর মধ্যে চলতে সক্ষম। টেবিল ফ্যান খুব কম বিদ্যুৎ ব্যবহার করে বাতাস তৈরি করে। ফ্যানটি বেশি সময় ধরে চললে অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল বেশি আসবে না। ফ্যানটির সুবিধা হলো যেখানে সেখানে রেখে দেওয়া যায় ও কম জায়গা দখল করে। চার্জার ফ্যান হলো এক ভিন্ন ধরনের ফ্যান যা আপনার বাসা বাড়িতে বিদ্যুৎ চলে গেলেওআপনাকে বাতাস দিবে। ফ্যানটির মধ্যে থাকে একটি ছোটো ব্যাটারি যার জন্য আপনাকে কিছু সময়ের জন্য বাতাস দিবে। ফ্যান টি চলার সময় ব্যাটারি-টি সারাসরি বিদ্যুৎ থেকেই কিছু বিদ্যুৎ সংরক্ষণ করে।

স্ট্যান্ড ফ্যান আপনাদের সবার কাছেই কম বেশি পরিচিত। স্ট্যান্ড ফ্যান চালাতে ৬৫ থেকে ১১০ ওয়াট বিদ্যুৎ প্রয়োজন হয়। সিলিং ফ্যান সাধারণত বাসা বাড়িতে বা অফিসের দেয়ালের উপর লাগানো হয়। সিলিং কথাটা-টির অর্থ হচ্ছে সিঙ্গেল ফেজ  ইন্ডাকশন মটর। ফ্যান-টিতে ২৩০ ভোল্টেজ বিদ্যমান থাকায় অসম্ভব বাতাস উৎপন্ন করে। ফ্যানটি চলতে বেশি বিদ্যুৎ খরচ হয় বলে বেশি বিদ্যুৎ বিল হয়। সিলিং ফ্যানের সাধারণত পাওয়ার ১০০ ওয়াট ধরা হয় কিন্তু ৪৮ ইঞ্চি ৬০ ওয়াট ও ৫৬ ইঞ্চি ৮০ ওয়াট ধরা হয়ে থাকে। ফ্যানটির পাখা-গুলো ৯০° করে লাগানো থাকে। আজ আমরা আলোচনা করবো চার্জার ফ্যান এর দাম ২০২৩ সম্পর্কে। 

চার্জার ফ্যান এর দাম ২০২৩

চার্জার ফ্যান এর দাম ২০২৩ 

চার্জার ফ্যান একটি অত্যাধুনিক পন্য। কারেন্ট গেলেও কিছু সময়ের জন্য আপনাকে ব্যাকআপ দিবে। তার জন্যই একে চার্জার ফ্যান বলা হয়। বাসাবাড়িতে, অফিসে,দোকানে ব্যবহার করতে দেখা যায়। যেভাবে ব্যবহার করবেন :

কারেন্ট থাকা অবস্থায় আপনি বাতাস পাবেন ও কারেন্ট গেলেও নিদিষ্ট সময় পর্যন্ত ফ্যানটি থেকে আপনি বাতাস পাবেন। অন্য সকল ফ্যান এর মতোই কাজ করে এই ফ্যানটিতে। Miyako ব্যান্ডের KL-2612 মডেলের চার্জার ফ্যান এর দাম : ৩,৬৭০০ টাকা, ওয়াল্টান WRF-10R (Rechargeable Box Fan) মডেলের ফ্যানটির দাম ৪,১০০ টাকা। এছাড়া সকল ব্র্যান্ডের চার্জার ফ্যান এর দাম পেয়ে যাবেন এখানে। 

ফ্যানটির ক্যাচিঙ (খাঁচা) এর পিছনে থাকে একটি চাবি। চাবিটি চাপ দিয়ে নিচের দিলে দিলে ফ্যান টি ঘুরে ঘুরে বাতাস দিবে। বিভিন্ন মডেলে একটি করে ছোটো লাইট ও থাকে। ফ্যানটির নিচে থাকে কয়েটি পাওয়ার বাটন ও ছোটো কয়েটি লাইট। থাকে একটি ডিজিটাল মিটার যা থেকে আপনি বুঝতে পারবেন কতটুকু চার্জ রয়েছে।

বাংলাদেশে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের চার্জার ফ্যান রয়েছে কিন্তু সকল প্রতিষ্ঠানের থেকেও কয়েকটি প্রতিষ্ঠান অধিক জনপ্রিয় লাভ করেছে। কারন তাদের বাকি প্রতিষ্ঠান গুলোর থেকে তাদের পন্য-সামগ্রী মানসম্মত হয়ে থাকে। ঠিক এই জন্য তাদের প্রডাক্টের চাহিদা বাড়ছে। চার্জার ফ্যানের দাম ২০২৩ এ যে সকল কোম্পানি টপ টেন এর মধ্যে রয়েছে তাদের তালিকা: 

 (০১) Miyako

(০২) Vision Electronics

(০৩) Marcel

(০৪) Sony Corporation

(০৫) OnnoRokom Electronics Co. Ltd.

(০৬) Walton

(০৭) Jamuna Electronics

(০৮) Singer Bangladesh

(০৯) Singer

(১০) LG Butterfly

উক্ত প্রতিষ্ঠান গুলো ব্যাপক জয়প্রিয়। শুধু এই কোম্পানি গুলো-ই নয় আরো কোম্পানি রয়েছে কিন্তুু সেরা ১০ এর মধ্যে এরা অবস্থান করছে। আসুন আমরা জেনে নেই এই সকল প্রতিষ্ঠানের চার্জার ফ্যান এর দাম ২০২৩ সম্পর্কে।

(০১) Miyako : 

                মডেল : -KL-2612

                মূল্য : ৩,৬০০ টাকা

(০২) Vision Electronics : 

                মডেল :  Table Fan 14″

                 মূল্য : ৪,২০০ টাকা 

                  রং : আকাশী ব্লু

               ব্যাটারি : ৬ ভোল্ট 

আপনি যদি বিদ্যুৎ না থাকলো এই ফ্যানটি সর্বোচ্চ গতি দিয়ে ব্যবহার কারেন তাহলে ৩ থেকে ৩ ঘন্টা ৩০ মিনিট এর মতো ব্যাকআপ দিবে আর আপনি যদি কম গতিতে ব্যবহার কারেন তাহলে ২৫ ঘন্টার মতো ব্যাকআপ দিবে। 

ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের দাম ২০২৩

আমাদের বাংলাদেশের নিজস্ব প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন। প্রতিষ্ঠানটি ব্যাপক জনপ্রিয় হয়েছে। যেহেতু এটি বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠান সেহেতু বাংলাদেশের জন্য পণ্যের

 দাম থেকে ছাড় দিয়ে থাকে। ওয়ালটন শুধু ইলেক্ট্রনিক পন্য-ই তৈরি করে না। ওয়ালটন এখন বাইসাইকেল, মটর সাইকেল ইত্যাদি ও তৈরি করে। আজ আমরা আলোচনা করবো ওয়ালটন চার্জার ফ্যান এর দাম ২০২৩ এর কিছু মডেল ও মূল্য। নিম্ন আলোচনা করা হলো। প্রথমেই আলোচনা করবো একটি বক্স চার্জার ফ্যান নিয়ে মডেলটি হলো :

  •  WRF-10R (Rechargeable Box Fan)। অসাধারণ দেখতে এই ফ্যানটি। ফ্যানটির দাম হলো : ৪,১০০ টাকা।
  •  ২য় মডেল টি হলো : W17OA-EM-MS। ফ্যানটির দাম হলো ৪,৩৯০ টাকা। উচ্চতা : ১৭ ইঞ্চি। ফ্যানটির সিস্টেম রেঞ্জ ৯০ ভোল্ট থেকে ২৬৫ ভোল্ট। রাতে জালানোর জন্য একটি ছোটো লাইট রয়েছে। 
  • ৩য় মডেলটি হলো : W17OA-MS। মডেলটিতে রয়েছে অসাধারণ লুক। ফ্যানটির দাম হলো : ৫,৬৮০ টাকা মাত্র। ফ্যানটিতে সিস্টেম রেঞ্জ রয়েছে ৯০ ভোল্ট থেকে ২৬৫ ভোল্ট। ফ্যানটিতে একটি এলইডি লাইট রয়েছে এবং এটি রিমোট দিয়েও চালাতে পারবেন। 
  • ৪র্থ  মডেলটি হলো : W17OA-MS (Stand-Blue, Base-Blue। মডেলটির দাম হলো ৪,৬৮০ টাকা। 
  • ৫ম মডেল হলো : W17OA-AS। এই মডেলটিও দেখতে মন্দ নয়। ১৭ ইঞ্চি উচ্চতা এই ফ্যানটি। ফ্যানটির দাম হলো ৪,৯৯০ টাকা। সিস্টেম রেঞ্জ হলো ৯০ ভোল্ট থেকে ২৬৫ ভোল্ট রেয়েছে একটি এলইডি লাইট। এই মডেলটি আপনি চাইলে ফ্যানটি রিমোট দিয়ে ও রিমোট ছারা চালাতে পারবেন। 
  • ৬ষ্ঠ মডেলটি হলো : W17OA-AS (Stand-White, Base-White)। মডেলটির দাম হলো : ৪,২০০ টাকা।  মডেলটিতে রয়েছে লং টাইম ব্যাকআপ, রয়েছে একটি এলইডি লাইট। এই মডেলটি আগের মডেলগুলোর মতোই একই সিস্টেম রেঞ্জ।
  •  ৭ম একটি মডেল হলো : WRTF12A। মডেলটি দাম :৩,৪৫০ টাকা। ফ্যানটির রং লাল। ১২ ইঞ্চি মডেলের ফ্যান। ফ্যানটিতে রিমোট কন্ট্রোল ও নন রিমোট। আপনি ২ ভাবেই চালাতে পারবেন এই ফ্যানটি।
  • ৮ম মডেল হলো : WRTF14A। মডেলটির মূল্য হলো ৩,৬৫০ টাকা। মডেলটিতে রয়েছে লং টাইম রান ব্যাটারি। ফ্যানটির উচ্চতা ১৪ ইঞ্চি। আরো রেয়েছে একটি এলইডি লাইট কিন্তু এই মডেলে কোনো রিমোট কন্ট্রোল নেই।
  • মডেলটি হলো : Walton W17OA-EM-MS Charger Fan।  ফ্যানটির দাম হলো ৩,৬৯০ টাকা। ফ্যানটিতে রয়েছে ৬ মাসের রিপ্লেস গ্যারান্টি। ফ্যানটির রং সাদা।
  •  মডেলটি হলো : Walton WRTF14A Charger Fan।
  • মডেলটি হলো : Walton WRTF 12A Charger Fan। মূল্য হলো : ২,৯৫০ টাকা মাত্র। ফ্যানটির বডি রং হলো লাল রং এবং খেঁচা হলো সাদা রং। 
  • (৪) মডেলটি হলো : Walton Rechargeable Table Fan W17OA-MS (Stand-White, Base-Blue)। ফ্যানটির মূল্য হলো ৪,১০০ টাকা মাত্র। ফ্যানটি ৩ পাখা বিশিষ্ট। 

সিঙ্গার চার্জার ফ্যানের দাম ২০২৩ 

বাংলাদেশের মধ্যে আরেকটা উন্নতমানের কোম্পানি হলো সিঙ্গার(Singer)। ভালোমানের পন্য উৎপাদনে এক ধাপ এগিয়ে আছে সিঙ্গার। বর্তমানে কোম্পানিটি বিভিন্ন রকমের ইলেকট্রনিক জিনিস-পত্র তৈরি করছে যেমন : টিভি,ফ্যান,এসি,ল্যাপটপ,ডেক্সটপ,মনিটর,প্রিন্টার ইত্যাদি। নিম্নে কিছু সিঙ্গার চার্জার ফ্যান এর দাম ২০২৩ সালের কিছু মডেল দেওয়া হলো :

সিঙ্গারের ১ম মডেলটি হচ্ছে : Singer 16″ Table Fan। মডেলটি খুবই উন্নতমানের। দাম হচ্ছে : ১,৯৯৯ টাকা মাত্র। ফ্যানটির মোটর ওয়ারেন্টি পাবেন কেনার ৬ মাস এর মধ্যে। ফ্যানটির পাখা ব্লু ও খাঁচা সাদা রং এর। এই মডলটির ফ্যানটি পাখা খুব মজবুত। আপনি যদি সর্বচ্চো গতি দিয়ে ব্যবহার করেন তাহলে ৪ থেকে ৫ ঘন্টা ব্যবহার করতে পারবেন এবং আপনি যদি কম গতি দিয়ে ব্যবহার করেন তাহলে ১৫ থেকে ২০ ঘন্টার মতো চলবে।

১৪”ভিশন চার্জার ফ্যানের দাম ২০২৩ 

  বাংলাদেশের মধ্য ভিশন একটি কোম্পানি। কোম্পানিটি প্রথমে এলইডি টিভি থেকে শুরু করে আজ নানন রকমের ইলেকট্রনিক পন্য তৈরি করছে। তাদের পন্য সামগ্রিই ভালো মানের হওয়ার কারনে তারা জনপ্রিতা লাভ করছে। আসুন  জেনে নেই ভিশন প্রতিষ্ঠানের কিছু চার্জার ফ্যানের দাম ও মডেল :

  •  ভিশন এর যে মডেল টি প্রথমেই আলোচনা করবো সেই মডেলটি হলো : VISION Rechargeable Table Fan 14”। মডেলটির দাম হলো ৪,২০০ টাকা।

অসাধারণ একটি সাদা রং এর মডেল। ফ্যানটির উচ্চতা ১৪ ইঞ্চি। ফ্যানটিতে পাবেন ৫ টি পাখা। মডেলটি দেখতে খুবই সুন্দর। ভিশন কোম্পানিটি যে কয়টি চার্জার ফ্যান তৈরি করেছে তার ভালো মানের হলো এটি। ১২ থেকে ১৫ ঘন্টা চার্জ দিলে চার্জ সম্পূর্ন হবে এবং রয়েছে ৬ মাসের গ্যারান্টি।রেয়েছে সুন্দর  একটা এলইডি লাইট। আপনি ফ্যানটিতে USB পোর্ট যার মাধ্যমে আপনি ফ্যানটিকে চার্জ করতে পারবেন এবং রয়েছে আরো পোর্ট মোবাইল চার্জ দেওয়ার জন্য।

  • ২য় মডেলটি হলো : VISION Rechargeable Table Fan 12″। ফ্যানটির মূল্য : ৩,৫৫০ টাকা মাত্র। ফ্যানটির উচ্চতা ১২ ইঞ্চি। ফ্যানটিতে রয়েছে তিন টি পাখা। ব্যবহার করা হয়েছে ৬ ভোল্টের একটি ব্যাটারি। ব্যাটারিটিতে ১২ থেকে ১৫ ঘন্টা প্রযন্ত চার্জ দিলে সম্পূর্ণ হয়ে যায়। ফ্যানটি খুব হালকা থাকার কারনে যেকোনো স্থানে বহন করতে সুবিধা হবে ও যেকোনো স্থানে রেখে দেওয়া যাবে। আপনি ৩ রং এর ফ্যানটি পাবেন 

১. সাদা,২.আকাশি,৩.নীল। 

ফ্যানটিতে আরো পাবেন ৬ মাসের গ্যারান্টি।

এই মডেলের ফ্যানটিতেও পাবেন USB পোর্ট। এছারা নতুন-নতুন ফিচার।

(১৭) মডেলটি হচ্ছে : VISION Rechargeable Table Fan 14” White USB Charger। ফ্যানটির মূল্য হলো : ৩,৮৩০ টাকা মাত্র। অসাধারণ একটি মডেল এটি।

(১৮) মডেলটি হলো : Vision Charger Fan WI-1024E।  মূল্য হলো : ৪,৩৪৫ টাক মাত্র। ফ্যানটি তে রয়েছে ৫ টা পাখা এবং এই ফ্যানটি পাখার জন্য দেখতে অসাধারণ। 

ছোটো চার্জার ও টেবিল চার্জার ফ্যান এর দাম ২০২৩ 

আমাদের দেশের বিভিন্ন কোম্পানির বিভিন্ন ধরনের চার্জার ফ্যানের মডেল রয়েছে। বর্তমানো আগের তুলনায় কোম্পানি গুলো এখন অধুনিক চার্জার ফ্যানের মডেল তৈরি করছে। আগে ছিলো শুধু বিদ্যুৎ দিয়ে চালানো ফ্যান। আস্তে আস্তে এখন মডেল গুলি আধুনিক হয়েছে। টেবিল চার্জার ফ্যান থেকে শুরু করে পকেট চার্জার ফ্যান বা ছোটো চার্জার ফ্যান তৈরি করছে কোম্পানি গুলো।

বিভিন্ন ধরনের মডেল তৈরি করছে এর সাথে সাথে দাম ও বৃদ্ধি পাচ্ছে। গরমের দিন মানুষ যখন রাস্তায় বের হয় তখন তারা হাতে বা পকেটে করে ছোটো ফ্যান নিয়ে যায়। আর এই ফ্যান গুলো দেখতে খুবই সুন্দর হয়। নিম্নে কয়েটি টেবিল চার্জার ফ্যান ও ছোটো চার্জার ফ্যান এর কিছু মডেল ও দাম তুলে ধরা হলো। প্রথমে তুলে ধরা হলো টেবিল চার্জার ফ্যান এর কিছু মডেল ও দাম :

(০১) মডেলটি হলো : Nova Charger Fan NV-3001। ফ্যানটির দাম হচ্ছে ১৫০০ টাকা মাত্র। 

(০২) মডেলটি হলো : Western Rechargeable Table Fan F0056। ফ্যানটির দাম হলো হচ্ছে ৩,৬৫০ টাকা মাত্র।

(০৩) মডেলটি হলো : Western Rechargeable Table Fan F0082। ফ্যানটির দাম হচ্ছে ২,৫৯০ টাকা মাত্র।

(০৪) মডেলটি হলো : Western Rechargeable Table Fan F0085। ফ্যানটির দাম হচ্ছে : ২,৭৯০ টাকা মাত্র।

(০৫) মডেলটি হলো : Western Rechargeable Table Fan F0092। দাম হচ্ছে : ২,৭৫০ টাকা মাত্র।

(০৬) মডেল হলো : Western Rechargeable Table Fan F0095। ফ্যানটির দাম হলো ২,৮৯০ টাকা মাত্র। ফ্যানটির কালার হলো সাদা।

(০৭) মডেলটি হচ্ছে : Western Rechargeable Table  ফ্যানটির দাম হলো ৩,০৯০ টাকা মাত্র।

(০৮) মডেলটি হলো : Western Rechargeable Table Fan F0192।  দাম হলো ২,৪৯০ টাকা মাত্র। ফ্যানটির রং টি অসাধারণ। ফ্যানটিতে রয়েছে ৬ মাসের গ্যারান্টি।

(২৫) মডেল : Western Charger Fan WI-F0192। মূল্য হলো :২,১৯০ টাকা মাত্র

(২৩)  মডেলটি হলো : Western Charger Fan WI-1062। মডেলটির মূল্য হলো : ২,১৪০ টাকা মাত্র। ফ্যানটির ৩ টি পাখা। আপনি চাইলে ৫ পাখা লাগাতে পারেন। দাম হলো ৩,১৫০ টাকা। ফ্যানটির রং হলো সবুজ এবং ফ্যানটির খেঁচা সাদা রং এর।

মার্সেল চার্জার ফ্যান দাম ২০২৩

(১) মডেলটি হলো : Marcel M17OA-AS (Stand-Blue, Base-Blue) Charger Fan। ফ্যানটির মূল্য হলো ৪,২০০ টাকা মাত্র। ফ্যানটিতে রয়েছে অসাধারণ লুক। বডি রং ব্লু এবং খাঁচা হলো কালো। 

(২) মডেল হচ্ছে : Marcel M17OA-EM-MS (Stand-White, Base-White) Charger Fan। ফ্যানটির দাম হচ্ছে ৩,৬৯০ টাকা মাত্র। ফ্যানটির বডি সাদা ও খেঁচার রং সাদা।

(৩) মডেল হলো : Marcelসানকা চার্জার ফ্যান এর দাম ২০২৩ M17OA-MS (Stand-Blue, Base-Blue) Charger Fan। ফ্যানটির মূল্য হলো ৪,১০০ টাকা।

ভিশন চার্জার ফ্যান দাম ২০২৩

(১) মডেল : Vision Charger Fan WI-2612। ফ্যানটির মূল্য ১,৯৯০ টাকা মাত্র। এই ফ্যান টি আপনি সব জায়গাতেই ব্যবহার করতে পারবেন।  ফ্যানটি দেখতে আনেক সুন্দর। ফ্যানটিতে প্রচন্ড বাতাস উৎপন্ন করে। র্মাকেটে খুব জনপ্রিয় একটি ফ্যান। 

(২) ভিশন এর একটি উন্নতমানের ফ্যানের মডেল হলো : VISION River Wind Table Fan (16XKnife) Orange দেখতে অসাধারণ ফ্যানটি ৩ পাখা বিশিষ্ঠ। 

(৩) মডেল হলো : Miyako Rechargeable Fan KL-2924। ফ্যানটির মূল্য হলো ৪,৯৯০ টাকা। ফ্যানটিতে রয়েছে ৫ টি পাখা। পাখা ৫ টির রং হলো লাল।

(৪) মডেলটি হলো : Midea Rechargeable Table Fan MCF-1022E। ফ্যানটির মূল্য হলো ৩,৩০০ টাকা মাত্র। 

(৫) মডেল হলো : Midea Rechargeable Table Fan MCF-2912। মূল্য হলো ৩,৫৭৫ টাকা মাত্র। 

(৬) মডেলটি হলো : Midea Rechargeable Table Fan MCF-W6116। মূল্য হলো ৫,০০৫ টাকা মাত্র। ফ্যানটি ৫ পাখা বিশিষ্ট। 

সানকা চার্জার ফ্যান এর দাম ২০২৩

(১) মডেলটি হলো : Sunca Rechargeable Fan BE HS 5602। ফ্যানটির মূল্য হলো : ৪,৫০০ টাকা মাত্র।

(২) মডেলটি হলো : Sunca Charger Fan BE 3116। ফ্যানটির দাম হলো : ৩,৯০০ টাকা মাত্র।

(৩) বাজারে একটি নতুন মডেল হলো : Sunca Charger Fan BE 2389। ফ্যানটির মূল্য হলো ৩,৬০০ টাকা। ফ্যানটি খুব মজবুত ও টেকসই। ৩ পাখা বিশিষ্ট এই ফ্যানটি খুব অসাধারণ।

বিভিন্ন ব্রান্ডের চার্জার ফ্যান দাম ২০২৩

(১) মডেল : HT-JR 5580 portable। ফ্যানটি খুব ছোটো যা আপনি পকেটে  রাখতে পারবেন। ফ্যানটির দাম হচ্ছে ১,৩১০ টাকা মাত্র। ফ্যানটির সাথে একটি ছোটো লাইট রয়েছে।

(২) মডেল : Jisulife FA18S 4000mAh।  ফ্যানটির মূল্য হলো ১৮৫০ টাকা মাত্র। ফ্যানটি আপনাকে ৪ থেকে ১২ ঘন্টা ব্যাকাপ দিতে সক্ষম। 

(৩) মডেল হলো : Click Rechargeable Table Fan 12” USB Charger। ফ্যানটি দেখতে অনেক সুন্দর। ক্লিক এর একটি নতুন মডেলের ফ্যান। ফ্যানটির দাম হলো ২,৮৯০ টাকা মাত্র।

(৪) মডেল হচ্ছে : Click Rechargeable Table Fan 12” Blue। ফ্যানটির মূল্য হলো ৩,১০০ টাকা মাত্র।

(৫)  মডেলটি হলো : Nova Charger Fan BE 2812। ফ্যানটির মূল্য হলো ৩১০০ টাকা। এটি তিন পাখা বিশিষ্ট।

(৬) মডেল : Nova Charger Fan BE 2612। ফ্যানটি খুব সুন্দর। লালচে রং। ফ্যানটি আপনি টেবিলে ও ব্যবহার করতে পারবেন এবং আপনি কোথায় বেড়াতে গেলে কিংবা ঘুড়তে গেলে ফ্যানটি ব্যাগে করে নিয়ে যেতে পারবেন।

(৭) মডেলটি হলো : Conion Charger Fan BE। ফ্যানটির মূল্য হলো ৩,৫০০ টাকা। এটিও একটি অসাধারণ ফ্যান।

আশা করি আপনি চার্জার ফ্যান এর দাম ২০২৩ সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। আমাদের এই পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। 

(সবচেয়ে আগে সব খবর, সঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News পেজ)

4.9/5 - (150 votes)

2 Comments

    1. সম্প্রতি এলেক্ট্রিক সমস্যার কারনে দাম বেশি নিচ্ছে! আসলেও প্রাইজগুলা অথেনটিক!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button